রামুর জোয়ারিয়ানালায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ৩ হাজার গাছের চারা নিধন

0
187

সোয়েব সায়েদ, রামু

রামুর জোয়ারিয়ানালায় জমি নিয়ে বিরোধের
জের ধরে ৩ হাজার গাছের চারা নিধন
রামু প্রতিনিধি
রামুতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ৩ হাজার ফলজ-বনজ গাছের চারা কেটে দেয়া হয়েছে। বর্বর এ ঘটনাটি ঘটে জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের নন্দাখালী বড়পাড়া এলাকায়। বাগান মালিক হাজ¦ী মেহের আলী জানিয়েছেন-তিনি তাঁর স্বত্তদখলীয় ৭০ শতক জমিতে দীর্ঘদিন ফলজ-বনজ গাছ রোপন করে ভোগ দখল করে আসছিলেন। জমিটি জবর দখলের জন্য এলাকার একটি প্রভাবশালী চক্র দীর্ঘদিন হুমকী-ধমকী সহ নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে।
এরই জের গত ১৬ নভেম্বর দিবাগত রাতে একই এলাকার মৃত আবদুল জলিলের ছেলে আমিন উল্লাহর নেতৃত্বে তার ভাই কলিম উল্লাহ, মৃত মনছুর আলীর ছেলে শহীদ উল্লাহ, আবু তাহেরের ছেলে সাহাব উদ্দিন, মৃত আবুল হোছনের ছেলে আবছার কামাল ড্রাইভার, দুদু মিয়ার ছেলে বাবুলের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ চক্র পরিকল্পিতভাবে বাগানে তান্ডব চালায়। চক্রটি বাগানে ২ বছর আগে রোপন করা ৩ হাজার বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ-বগজ গাছ কেটে সাবাড় করে দেয়। এরমধ্যে আকাশমনি, মেহগনি, আম, বিভিন্ন প্রজাতির গাছের চারা রয়েছে।
ঘটনার পরদিন সকালে বাগান মালিক মেহের আলী এ তান্ডবলীলা দেখে হতবাক হন। তিনি জানান, এ জমিটি তার স্বত্তদখলীয় এবং পরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাস খতিয়ানভূক্ত হলে তিনি লিজ নিয়ে ভোগ দখল করে আসছেন। কোন প্রকার স্বত্ত-দখল না থাকা সত্ত্বেও আমিন উল্লাহ ও তার সহযোগিরা এ জমি নিয়ে দীর্ঘদিন তাদের হয়রানি করে আসছে। এ নিয়ে ইতিপূর্বে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা এবং রামু থানায় লিখিত অভিযোগও দেন। যা এখনো বিচারাধিন রয়েছে। এসব অভিযোগের প্রাথমিক তদন্তে জমির পক্ষে কোন প্রমাণাদি দেখাতে না পেরে তারা পরিকল্পিতভাবে এ তান্ডবলীলা চালিয়েছে। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান মেহের আলী। এ ঘটনায় তিনি সুষ্ঠু প্রতিকার দাবি করেছেন।